বন্যায় তলিয়ে গেছে নীলফামারীর ১৬টি গ্রাম

0
1898

নীলফামারী প্রতিনিধিঃ তিস্তা নদীর বন্যা ও ভাঙন পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। উজানের ঢলে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ১৬টি গ্রামের ভেতর দিয়ে বন্যার পানি প্রবাহিত অব্যাহত রয়েছে।

বুধবার ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। এ ছাড়া এদিন তিস্তার ভাঙনে নতুন করে চরখড়িবাড়ি এলাকার ৮০টি পরিবার এসে আশ্রয় নিয়েছে।

ছাতুনামা, ভেণ্ডাবাড়ী, টাবুর চর, জিঞ্জির পাড়া, একতার চর, বাঘের চর, ইউনুছের চর, বাইশ পুকুর, পূর্ববাইশ পুকুর, চরখড়িবাড়ি, পূর্ব খড়িবাড়িসহ আশেপাশের ১৬টি গ্রামের উপর দিয়ে তিস্তার বন্যার পানি প্রবাহিত হচ্ছে বলে জানান জনপ্রতিনিধিরা।

তারা জানায়, যাদের বসতভিটা নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে তারা বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে। অনেকে বানের পানির মধ্যেই গ্রামে চরম কষ্ট করে বসবাস করছে। ওই সব পরিবার নিরাপদে নিয়ে আসা জরুরী হয়ে পড়েছে।

গত ১৬দিনে বন্যায় ইউপি চেয়ারম্যানদের তথ্যমতে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সংখ্যা ২ হাজার ছাড়িয়ে গেলেও সরকারিভাবে ১ হাজার ১৩২টি পরিবারের তালিকা দেখানো হয়েছে। অবশিষ্ট পরিবারগুলো তালিকা তৈরি করা হচ্ছে।

উপজেলা প্রশাসন ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ৩৮৩টি পরিবারের মাঝে শুকনা খাবারের প্যাকেজ বিতরণ করা হয়। এসব খাবারের মধ্যে রয়েছে ৫ কেজি চাল, মশুর ডাল, লবন, সোয়াবিন তেল, মুড়ি চিড়া, চিনি ১ কেজি করে, দিয়াসালাই ও মোমবাতি ১ বান্ডিল। এসব ত্রাণ বিতরণ করেন ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

nine − 5 =